1. newsiqbalcox@gmail.com : Somoy Bangla : Somoy Bangla
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

পরিবেশবাদীরা আসামী হলেন পরিবেশের মামলায়!!

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৫ মার্চ, ২০২৪
  • ১১১ ভিউ সময়

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সাংবাদিক ও পরিবেশের নাম বিক্রি করে মারাত্মক পরিবেশ বিধ্বংসী পাহাড় ও বন উজাড় করায় কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর পরিবেশ আইনে মামলা রুজু করেছে। গত ১৪ মার্চ পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের পরিদর্শক মোঃ মুসাইব ইবনে রহমান এর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় এজাহার নামিয় পাঁচজন সহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামী করে এ মামলাটি গ্রহণ করেন। যার কক্সবাজার মডেল থানা মামলা নং ৪০/১৮৮, তারিখ ১৪/০৩/২০২৪ খ্রিঃ।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, গোপন সূত্রে প্রাপ্ত অভিযোগ এবং পরিচালক মহোদয়ের মৌখিক নির্দেশে গত ১২ মার্চ বিকাল ২ ঘটিকার সময় খুরুস্কুল পুর্ব হামজার ডেইল বনাকাটা এলাকায় বাদী কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তর এর পরিদর্শক মোঃ মুসাইব ইবনে রহমান ও পরিদর্শক ফাইজুর রহমান সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। এসময় এলাকাবাসী সর্বাত্মক সহযোগিতা করে তথ্য প্রদান করেন। এসময় পরিবেশের লোকজন যাওয়ার খবর পেয়ে আসামীরা পালিয়ে যায়। পরিদর্শন কালে দেখা যায়, পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি না নিয়ে প্রায় ৫০ ফুট উচু পাহাড়ের প্রায় ৩০ শতকের বেশী পাহাড় কেটে পরিবেশ প্রতিবেশের মারাত্মক ক্ষতিসাধন করেন। গত ১৫ জানুয়ারী/২৩ ইং তারিখ হতে ১২ মার্চ/২৪ ইং তারিখ পর্যন্ত এক বছর দুই মাসের অধিক সময় ধরে পাহাড় কাটে প্লট বানিজ্য শুরু করে বলে জানান স্থানিয়রা। উল্লেখ থাকে যে, এ এলাকায় পাহাড় কাটার দায়ে বছর কানেক আগে আরো একটি মামলা হয়েছিল। আসামীগন আবোরো যোগসাজসে পাহাড় কেটে প্লট বানিজ্য করতেছে। সুস্পষ্ট আলামত পাওয়ায় বাদী এ মামলা করেছেন বলে জানান। পরিবেশ আাইনের ৬(খ) ও ১২ ধারা লঙ্গন করে একই আইনের ১৫(১) টেবিলের ৫,১২ ও ১৩ বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১০): পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি গ্রহণ ব্যতিরেকে অবৈধভাবে পাহাড় কর্তনের ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশের মারাত্মক ক্ষতিসাধন করার অপরাধে মামলাটি রুজু হয়। মামলার আসামীরা হলো ১) মোঃ নবাব মিয়া(৪৮), পিতা- মৃত আব্দু শুক্কর, সাং কুলিয়া পাড়া, খুরুস্কুল,২) নাছির উদ্দিন রুনা(৪৯), পিতা- মৃত আব্দু রহিম, সাং টেকপাড়া, কক্সবাজার পৌর সভা,৩) রাশেদুল মজিদ(৪১), পিতা- মৃত আব্দুল মজিদ, সাং বাদশা ঘোনা, ৯ নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা ৪) সিরাজুল ইসলাম (৩৭), পিতা- নুরুল ইসলাম, সাং ঘোনার পাড়া অংশ, ৯ নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা ও ৫) মহসিন প্রকাশ মহসিন শেখ (৪৪), পিতা- মরহুম খায়রুজ্জামান মুন্সি, সাং পশ্চিম বাহার ছড়া, ১১ নং ওয়ার্ড, কক্সবাজার পৌরসভা, সর্ব উপজেলা-সদর, কক্সবাজার সহ অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১২ জন আছে।

অভিযোগ আছে, নুরুল ইসলাম মুন্না নামের এক ভুক্তভোগী জানান, সাংবাদিক রাশেদুল মজিদ ও সিরাজুল ইসলাম মিলে আমার কলাতলী আমার মামার জায়গায় যান। সেখানে গিয়ে নিজেকে পরিবেশবীদ পরিচয় দিয়ে পাহাড় কাটার অভিযোগ তুলেন আমার বিরুদ্ধে। আমার কাছে ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন তারা। পরে তার বাড়িতে ঢেকে নিয়ে ৫০ হাজার টাকা নেন। আমি বাকী টাকা না দেওয়ায় আমাকে কলাতলীর ইউনছু মেম্বার মিলে আমাকে একটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ৩নং আসামী বানিয়ে দেন। পরে তিনি পরিবেশের আরেকটি মামলায় আমার ৩ জন মামাকে বর্তমানে সৌদিআরবে থাকা অবস্থায় মামলার আসামী করেন। তারা হলেন, মোঃ সালামত উল্লাহ, মোঃ সলিম, মোঃ ফায়সাল। তিনি আরো বলেন,আমি কথিত রাশেদুল মজিদের বিরুদ্ধে আমি বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে রাশেদুল মজিদকে ১নং ও মো ইউনুস ২নং আসামী করে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করি। বিজ্ঞ আদালত তা আমলে নিয়ে মামলা রুজু হয়। যার মামলা নং-সিআর ১৮৬/২০২৪। আমি তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি সেই সাথে আমাকে এবং আমার মামাদের মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই দেওয়ার জন্য বিজ্ঞ আদালতের কাছে প্রাথর্না জানাচ্ছি।

শেয়ার করুন

আরো বিভন্ন নিউজ দেখুন
© All rights reserved © 2021 somoybanglatv.com
Theme Customization By Monsur Alam