সাংবাদিককে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর হুমকিদাতার বিচার হয়নি এখনো

চট্টগ্রাম অফিসঃ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০

চট্টগ্রাম অফিসঃ

গেলো ২২ই জুন চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থানার চুনতি পুলিশ ফাঁড়ির এসআই রেজুয়ান ও এএসআই সিদ্দীক জয়যাত্রা টেলিভিশনের চট্টগ্রাম প্রতিনিধি সাংবাদিক সেলিম উদ্দিনকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর একটি অড়িও রেকর্ডিং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। রেকর্ডিংয়ে শুনা যায় এসআই রেজুয়ান সাংবাদিক সেলিম উদ্দিনের চোখ তুলে ফেলার মত হুমকি দেয় এবং এএসআই সিদ্দিকী মরণঘাতী ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর মতো হুমকি দেয়।

সাংবাদিক সেলিম জানায় ঘটনার সম্মুখ স্বাক্ষী পুলিশ পরিদর্শক আলমগীর, দুজনের এমন অশুভনীয় আচরণ নিজের সামনে ঘটতে দেখলেও পুলিশ পরিদর্শক আলমীরের ছিলো দর্শকের ভূমিকা। এরপর ঘটনার পরদিনই এসআই রেজুয়ান নামের একজন প্রত্যাহার করেছে বলে জানায় লোহাগাড়া থানা ওসি, কিন্তু ঘটনার কয়েকদিন পেরিয়ে গেলেও মুল অভিযুক্ত এএসআই সিদ্দীকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি কতৃপক্ষ। যদিও লোহাগাড়া থানার ওসি বলেন এএসআই সিদ্দিকের বিষয়ে বিভাগীয় তদন্ত চলছে। এনিয়ে রবিবার (২৮ ই জুন) চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন সাংবাদিক সেলিম উদ্দিন।

বিষয়টি নিয়ে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাস জানান, এমন ন্যাক্কারজনক হুমকির প্রতিবাদ জানানোর ভাষা হারিয়ে ফেলেছি, লোহাগাড়া থানার ওসির বক্তব্য নিয়ে যদি বলি বিভাগীয় তদন্ত বলতে তিনি কি বলছেন? অড়িও রেকর্ডিংয়ে সুস্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে এএসআই সিদ্দীক সাংবাদিক সেলিমকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে দেবে। তাই অনতিবিলম্বে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। অন্যদিকে চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ফোরাম থেকেও জানানো হয়েছে তীব্র প্রতিবাদ।

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামে সভাপতি আবু জাফর বলেন, এভাবে প্রকাশ্যে একজন কলম সৈনিককে মরণঘাতী ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর হুমকি আমরা কোনভাবে বরদাস্ত করবো না। দোষীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। জয়যাত্রা টেলিভিশনের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সাংবাদিক ফুয়াদ মোহাম্মদ সবুজ জানান, বিষয়টি আমি প্রথম থেকেই আমার বিভিন্ন সাংবাদিক মহলকে অবহতি করেছি এবং নিজেও এমন ঘটনায় হতভম্ব হয়েছি যে যেখানে রাষ্ট্র প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশকে জনবান্ধব হওয়ার আহবান করছেন সেখানে কিছু অসাধু পুলিশ কর্মকর্তা এভাবে মানুষকে হয়রানি করছে। মূলত এদের কারণেই আজ পুরো পুলিশ ডিপার্টমেন্ট প্রশ্নবিদ্ধ। তাই অচিরেই এএসআই সিদ্দিককে আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হোক।

বিষয়টি নিয়ে চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক বলেন, সাংবাদিক সেলিমকে ইয়াবা দিয়ে হুমকির বিষয়টি আমি দেখার সাথে সাথেই সাতকানিয়া সার্কেলকে তদন্ত করার জন্য বলে দিয়েছি। তদন্ত রিপোর্ট আসলেই ব্যবস্থা নিবো।

এই সংবাদটি শেয়ার করার দায়িত্ব আপনার

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ সমূহ