মহেশখালী পৌর আ.লীগে অনুপ্রবেশকারী পৌর মেয়র নিজেই

সময় বাংলা অনলাইন ডেস্ক ●
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৪ নভেম্বর, ২০১৯

কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার যুদ্ধাপরাধীর সন্তান ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী মেয়র মকছুদ মিয়ার হাত থেকে মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগকে বাচানো এখন সময়ে দাবী হয়ে উঠেছে, যখন সারাদেশ ব্যাপী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্র থেকে তৃনমূল পর্যন্ত অনুপ্রবেশকারী, রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতা বিরোধী পরিবারের উত্তরসুরীদের দল থেকে বিতারিড়ত করার অভিযান অব্যাহত থাকে সেখানে ত্যাগী, বঞ্চিত, অবহেলিত ও নির্যাতিত তৃনমূল আওয়ামীলীগ কর্মীদের অবমূল্যায়ন করে ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য নিজের পছন্দনীয় ব্যক্তিদের দলের মূল্যবান পদ-পদবী সহ কমিটিতে স্থান দেওয়ার মতো কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। কক্সবাজারের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ মহেশখালী উপজেলা পৌরসভার পৌর মেয়র নাম মকছুদ মিয়া ২০০৫ সালে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগে তার আগমন, কিন্তু মকছুদ মিয়া এর আগে ছিলেন উপজেলা ও জেলা বিএনপিতে, ছিলেন ১৯৯২ এর আগে তিনি মহেশখালী হেফাজত ইসলামের সাথেও। বর্তমানে মকছুদ মিয়া মহেশখালী পৌরসভার মেয়র। তিনি পৌর আ.লীগের সভাপতি ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য। আ.লীগের তকমা লাগিয়ে তিনি মেয়র নির্বাচিত হন। এ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হলে প্রতিবাদ করে দলের কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছিলেন মানবতাবিরোধী অপরাধের একটি মামলার সাক্ষী পূর্ণচন্দ্র দে। ওই লিগ্যাল নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছিলো, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মেয়র পদপ্রার্থী মকছুদ মিয়ার পরিবারের অন্তত ৯ সদস্যের বিরুদ্ধে মহেশখালী দ্বীপের হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর বর্বর নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। এর মধ্যে পূর্ণচন্দ্র দের পরিবারসহ অনেকেই হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন একটি মামলার ২২ নম্বর আসামি ছিলেন মেয়র প্রার্থীর বাবা মরহুম মোহাম্মদ হাসেম সিকদার। একই মামলার ২ নম্বর পলাতক আসামি তাঁর চাচা মৌলভী জাকারিয়া সিকদার। অনুসন্ধানে জানা যায়, মকছুদ মিয়ার পিতা হাশেম সিকদার প্রকাশ বড় মোহাম্মদ তৎকালীন সময়ে নৌকার মাঝি ছিলেন। এক সময় ট্রলার মাঝিদের সর্দারে পরিণত হন তিনি। এসময় তার সাথে মিয়ানমারের ব্যবসায়ীদের সাথে নৌ পথে যোগাযোগ সৃষ্টি হয়। মিয়ানমারের অবৈধ ব্যবসায়ীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে। নৌ পথে মিয়ানমার থেকে অবৈধভাবে নানা পণ্য পাচারে জড়িয়ে পড়ে। এসময় মিয়ানমার থেকে আসা ২ জনকে ছোট মহেশখালীর উম্বনিয়া পাড়ার খামার এলাকায় নিয়ে গিয়ে তাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয় স্বর্ণের বার এবং ২ জনকেই গুম করে ফেলে। চোরাকারবারির এসব নানা ঘটনা তখন থেকে সবার মুখে মুখে প্রচার ছিল। সেই থেকে মিয়ানমারের চোরাকারবারিদের সাথে মকছুদ মিয়ার পরিবারের সর্ম্পক বিদ্যমান রয়েছে। আর সেই সূত্রপাত ধরেই মকছুদ মিয়ার নতুন প্রজন্মরা মিয়ানামার থেকে নৌ পথে ইয়াবা মজুদ করে মহেশখালীতে। ২০১৫ সালের ১৬ আগস্ট মহেশখালীতে খালাস হওয়া বিশাল ইয়াবার চালান পুলিশের হাতছাড়া হয়ে গেলেও এনিয়ে পুরো এলাকাজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। জানা যায়, নৌ পথে মিয়ানমার থেকে আসা সমস্ত ইয়াবা মজুদের ঘাট হিসেবে সে সময় মহেশখালী নিয়ন্ত্রণ করত মকছুদ মিয়ার পরিবার। অবশেষে তারই অংশ হিসেবে বড় মোহাম্মদের নাতি মকছুদ মিয়ার বড় পুত্র মিরাজ উদ্দিন নিশান ইয়াবার বড় চালানসহ ঢাকায় র‌্যাবের বড় অফিসারের হাতে আটক হয়। এসব ঘটনা থেকে প্রমাণ মেলে মকছুদ মিয়ার পরিবার পরম্পরা চোরাকারবারির সাথে জড়িত রয়েছে। একই সাথে মকছুদ মিয়ার বংশধরের দুস্কর্মের কথা বলতে গিয়ে অতীত ইতিহাস নিয়েও আলোচনা হয়। তাদের রাজনৈতিক পরিবারে মকছুদ মিয়া একজন ব্যতিত অন্য কেউ আওয়ামীলীগের সাখে সম্পৃক্ত নেই।
সংশ্লিষ্টরা বলছে  গত ১১ বছরে একাধিক সময়ে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ অভিযানের সময় অনেক বিতর্কিত লোকজন দলে প্রবেশ করেছে। সর্বশেষ এ বছরের ১ জুলাই থেকে সারাদেশে প্রাথমিক সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রমেও অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটে। সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে পারিবারিক পরিচয় ও নতুন সদস্যদের রাজনৈতিক পরিচয় যাচাই না করায় এই ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকর্মী। তারা আরো বলেন অনুপ্রবেশকারীদের একটা তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে, তৃণমূল পর্যন্ত। সারাদেশে দলে অনুপ্রবেশকারী, অপকর্ম যারা করেছে তাদের একটা তালিকা তার কাছে আছে। বিভাগীয় বা জেলা দায়িত্বে যারা আছেন তাদের এই তালিকাটি দেখতে বলেন তারা। তালিকা দেখে যার যার এলাকায় কমিটি গঠনে সতর্ক এবং সজাগ থাকার জন্য বলেছেন, যাতে এই ধরনের লোকেরা আওয়ামী লীগের কমিটিতে স্থান না পেতে পারে। মহেশখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার পাশা বলেন মকছুদ মিয়ার অনুপ্রবেশের বিষয়ে আমরা অবহতি হয়েছি এবং তার নামে অনেক অভিযোগ আমাদের হাতে এসেছে তাই আমরা এর তদন্তপুর্বক ব্যবস্তা নেওয়ার জন্য কক্সবাজার জেলা কমিটি বরাবর নোটিশ পাঠিয়েছি।

সূত্রমতে ১৯৭১ইং সালের পাক-হানাদার বাহিনীর সাথে বাঙ্গালী জাতীর উপর নির্মম নির্যাতনকারী আন্তর্জাতি যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের ৪নং তালিকাভূক্ত আসামী হাশেম সিকদারের ছেলে মকছুদ মিয়া। শুধু মেয়র মকছুদ মিয়ার পিতা হাশেম সিকদার একা নয়, ঐ পরিবারের ৬/৭ জনের অধিক নিকট আত্বীয়স্বজন যুদ্ধাপরাধ ও রাজাকার তালিকায় অন্তর্ভূক্ত আছেন। একই সাথে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযোক্ত মাওলানা মোঃ জকরিয়া বর্তমানে প্রায় ৭ বছর পালিয়ে আত্মগোপনে রয়েছে। অভিযোগ আছে মকছুদ মিয়ার পিতা হাশেম সিকদার ১৯৭১ইং সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বিক্ষাত আদিনাথ মন্দিরে তৎকালী পুরোহীত বাবু সতিন্দ্র লাল চক্রবর্তীর প্রথম কন্যা চিনু রাণী চক্রবর্তীকে সতিন্দ্রের বাসা থেকে জোর পূর্বক তুলে নিয়ে গিয়ে গোরকঘাটা সিকদার পাড়া গ্রামের খ্যাত নামে ঘরে বন্ধি করে রাখে এবং ২০-২৫ দিন ধরে তৎকালীন ওসি সহ ধর্ষন করে, এছাড়াও অনেক মহিলাকে ধর্ষন করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। মকছুদ মিয়ার চাচা মৌঃ জকরিয়া আন্তর্জাতি যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের ২নং আসামী। তৎকালীন সময়ে পুটিবিলা গ্রামের ধর্ন্যাঢ্য পরিবারের সন্তান শ্রী পুলিন পালের কন্যা শিকা রাণী পালকে জোর পূর্বক তুলে নিয়ে তার নিজ ঘরে আবদ্ধ করে রাখেন এবং অত্যচার জুলুম করার পর বাধ্যগত ভাবে ধর্মান্তরিত করেন। পরবর্তীতে বিয়ে করেন। এভাবে আরো অনেক মেয়ের জীবন নষ্ট করেন। তার পিতা মোঃ হাশেম সিকদারের চাচাত ভাই মৌঃ অলী আহমদ যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের আসামী ও স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় দুক্ষিণ হিন্দুপাড়া গ্রামের শ্রী কমল সাধুকে প্রকাশ্য জনসম্মুখে দোকানে ঢুকে তাহার পেটে ছুরিকাঘাত করে খুন করেন। মোঃ হাশেম সিকদার ও মৌঃ জকরিয়া নিকটস্থ অনেক আত্বীয়স্বজন মৌঃ এখলাছ, তার আপন মামা মৌঃ ওসমান গণি (কারান্তরিন) মৌঃ জালাল পলাতক, মৌঃ আব্দুল মজিদ পলাতক অবস্থায় মৃত্যুবরন করেন। এরা সকলেই আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের আসামী।  উল্লেখ্য কুখ্যাত রাজাকারের সন্তান মকছুদ মিয়ার ১ম পুত্র নিশান গত ১৮ সালের  ১৬ই আগষ্ট ঢাকার এলিফ্যান্ট রোড়ের বাসা থেকে ২ লক্ষ ৭ হাজার ১শত পিস ইয়াবা, যাহার ওজন ২০ কেজি ৭১০ গ্রাম এবং যাহার আনুমানিক মূল্য ৮ কোটি ২৮ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। নগদ ১৬ লক্ষ ৬৪ হাজার ১ শত টাকা সহ র‌্যাব সদর দপ্তর ঢাকা (ডিএমপি) হাতে গ্রেফতার হন। পরবর্তীতে যাহার মামলা নং- ১৬১৬৭/১৮।  মেয়র মকছুদ মিয়া ও তার পূর্বপুরুষদের নিয়েও রয়েছে নানা সমালোচনা। কারণ বংশানুক্রমিকভাবে তাদের কেউ আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল না। তাছাড়া তার পূর্বপুরুষদের অধিকাংশই ছিল যুদ্ধাপরাধী। তাদের রাজনৈতিক পরিবারে মকছুদ মিয়া ব্যতীত অন্য কেউ আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই। স্থানীয় সুত্রে মকছুদ মিয়ার এক বড় ভাইয়ের রাজনৈতিক আদর্শ ধীক্ষা নিয়ে গোরকঘাটা থেকে বড় মহেশখালীতে ধানের শীষ মার্কার পক্ষে মিছিল নিয়ে যেতো। সেই সময়ে বিএনপি সরকারের সহায়তায় বিভিন্ন প্যারাবন কাটার ঘটনায় বন বিভাগের দায়ের করা মামলায় চার্জসীটও গঠন হয়েছিলো। অভিযুক্ত মকছুদ মিয়া আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশ করার পর থেকে দলের কতিপয় নেতাকর্মীকে তার পক্ষ নিয়ে আওয়ামীলীগে সু-প্রতিষ্টিত হয়েছে। আওয়ামীলীগের কতিপয় নেতারা তার কথার বাহিরে কোন কাজ করে না। ফলশ্রুতিতে বর্তমানে মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগ ধ্বংসের ধার কিনারায় অবস্থান করছে বলে মতামত দেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ একাধিক পরিবারের। এছাড়াও নিজের ব্যক্তিগত দোকানকে অফিসের নামে ব্যবহার করে স্বাধীন মনোভাবে নেতা-কর্মীদের বাক স্বাধীনতার খর্ব করে নিজের আদিপত্য কায়েম করছেন। ফলে তার কাছে সুবিধাভোগিরা পুতুল নাচের মত ব্যবহার হয়ে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অর্থবিত্তের মালিক হচ্ছে প্রতিনিয়ত। যেখানে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও দেশরত্ন মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জেলা,উপজেলা, পৌর/ইউনিয়ন পর্যায়ের রাজাকার যুদ্ধাপরাধীর সন্তান, ইয়াবা কারবারির সাথে যাদের পরিবার জড়িত এবং দলে অনুপ্রবেশকারী তাদেরকে দল থেকে বহিস্কার করার নির্দেশ প্রদান করেছে, সেখানে অনুপ্রবেশকারী মকছুদ মিয়ার মত যুদ্ধপরাধী রাজাকার পরিবারের সন্তান কিভাবে নিজের অধিপাত্য কায়েম করে? কক্সবাজারের মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক মেয়র মকছুদ মিয়া উপরোক্ত প্রত্যেকটি বিষয়ের সাথে জড়িত থাকার পরও কেন তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হচ্ছে না তা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি/সম্পাদক এবং উপজেলা আওয়ামীগের সভাপতি/সম্পাদকের কাছে প্রশ্ন রেখেছেন দলের তৃনমূল ও ত্যাগী নেতাকর্মীরা। গত ২০১৫ সালে ৩ মাস মেয়াদী মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হলেও বর্তমানে এ আহ্বায়ক কমিটি ৫ বছর অতিবাহিত হয় কিন্তু ৩ মাস মেয়াদী এই কমিটি আদৌ বিলুপ্তি না হওয়ার পেছনে কারণ কি? তা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি/সম্পাদক ও মহেশখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি/সম্পাদকের কাছে তৃনমূল আওয়ামীলীগ এ বিষয়ে জানতে চায়। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের গঠনতন্ত্র মোতাবেক আহ্বায়ক কমিটিটি নির্বাচিত ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত করেত পারে কিনা ? যে আহ্বায়ক কমিটির নিজস্ব কোন বৈধতা নাই, সে কমিটি কিভাবে ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত করে? কক্সবাজার জেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সম্পাদক এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মানিত সভাপতি/ সম্পাদকের নিকট দলের তৃনমূল ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের একান্ত আবেদন রেখেছেন উপরোক্ত বিষয়াদি নিয়ে তাদের বক্তব্য পরিষ্কার করার জন্য এবং রাজাকারের সন্তান মেয়র মকছুদ মিয়ার হাত থেকে মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগকে রক্ষা করে দলের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য। যুদ্ধপরাধী ও রাজাকার পরিবারের সন্তান মকছুদ মিয়া কতৃক গত ২ই এপ্রিল ১৯ইং তারিখ রাত অনুমানিক ৭.৩০ ঘটিকার সময় মহেশখালী পৌরসভার দীঘির পূর্ব পার্শ্বে বিআরডিবি অফিসের সামনে রাস্তার উপর নির্মমভাবে মহেশখালী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও মহেশখালী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ছালামত উল্লাহকে পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া তার সাঙ্গপাঙ্গ সহ নির্মমভাবে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে জগন্যতম আঘাত করে। পরবর্তীতে ০৫/০৪/২০১৯ইং তারিখে তার নামে মহেশখালী থানায় মামলা রুজ হয়, যার মামলা নং- ০৮, তারিখ: ০৫/০৪/২০১৯ইং। মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা যুদ্ধপরাধী রাজাকারের পুত্র মকছুদ মিয়ার হাত থেকে আওয়ামীগকে রক্ষা করে কলঙ্ক মুক্ত করতে আওয়ামীলীগ পুর্ণগঠনের কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ ও জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান।

এই সংবাদটি শেয়ার করার দায়িত্ব আপনার

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ সমূহ

ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে সহকারী কাম-কম্পিউটারদের ১১৯ পদ সংরক্ষণের নির্দেশ

ডেস্ক নিউজঃ

কক্সবাজারসহ ৪ টি জেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের ১১৯ টি পদ সংরক্ষনের নির্দেশ প্রদান করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরতদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণ না করে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার পদে প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরতদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণের নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা পৃথক দুইটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মুহাম্মদ মাহমুদ হাসান তালুকদার সমন্বয়ের গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মো. মনিরুল ইসলাম ও মো. সোহরাওয়ার্দী সাদ্দাম। অন্য দিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার। আদেশের পর আইনজীবী ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া বলেন, দীর্ঘ ৯ বছর ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারে কর্মরত আছেন রিট আবেদনকারীরা। অথচ তাদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণ না করে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। রিটের শুনানি শেষে আদালত এই ১১৯ টি হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটর পদ ৬ (ছয়) মাসের জন্য সংরক্ষণ করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছেন। ফলে ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের এই ১১৯ টি পদের নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে এবং পদ গুলো সংরক্ষিত থাকবে। রিট আবেদনকারিগণ হলেন কক্সবাজার জেলার-আহমেদ আনোয়ার, মুরশেদুল করিম, জিয়াউল হক বাপ্পি, এহসান, গিয়াস উদ্দিন টিটু, আনোয়ারুল কবির, আব্দুল হাকিম, মোঃ মহিউদ্দিন, রুপন নাথ, শাহেদা পারভিন, নারায়নগঞ্জ জেলার-ইউসুফ মিয়া, আল-মাহমুদ, সালমা আক্তার, সাতক্ষিরা জেলার- মগফুর রহমান, মিঠুন কুমার সাহা, দেবদাস সানা, মোঃ শাহিন আলম, আব্দুল রশিদ নান্টু, এস. এম. শহিদুল ইসলাম, সাইফুজ্জামান, ঝিনাইদহ জেলার- মজিবুল হক, মোঃ মাসুদুর রহমান, সঞ্জিত বিশ্বাস, রঞ্জিত কুমার বিশ্বাসসহ ১১৯ জন।তারা বিভিন্ন ইউপির ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরত আছেন।

ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে সহকারী কাম-কম্পিউটারদের ১১৯ পদ সংরক্ষণের নির্দেশ


নুরুল বশর উখিয়া।

উখিয়া উপজেলার পালংখালী বাজারসংলগ্ন খালটি অবৈধ দখলে নাব্যতা হারাচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে খাল, টি বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। তবে এবিষয়ে ভূমি অফিস বলছে, খাল টির অবৈধ দখলদারদের তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে। আইনি জটিলতা সমাধান করে উচ্ছেদ অভিযানের পদক্ষেপ নেয়া হবে। তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, নদীবেষ্টিত ছিলেন এক সময় খালটি।পালংখালী বাজারের বুক চিড়ে বয়ে গেছে একটি খাল। স্থানীয় ভাষায় যাকে নারাংখালী খাল বলে এ খালটি দিয়ে গয়াল মারা মুছার খুলা থেকে দশটি গ্রামের পানি বয়ে আসে বর্ষা মৌসুমে। ওই সব এলাকার ফসলি জমির সেচের উৎসও একমাত্র খালটি। খালের প্রবেশদ্বার থেকে শুরু করে উত্তর-দক্ষিণ দিকে দেড় কিলোমিটারেরও বেশি জায়গায় গড়ে উঠেছে অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা। প্রায় খালের অর্ধেক দখল করে এমনভাবে অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে, যা সবার জন্য উদ্বেগজনক। অবৈধ দখলদারের তালিকায় রয়েছে ১০০ জনেরও বেশি। তারা সবাই খালের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা দোকান তৈরি করে ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালাচ্ছে। এদের মধ্যে কেউ পাকা পিলার আবার কেউ কাঠের খুঁটি দিয়ে স্থাপনা তৈরি করেছে। বাজারসংলগ্ন খালটি পূর্ব-পশ্চিমমুখী। খালের প্রায় অর্ধেক দখল করে দোকান তুলে ব্যবসা করছে দখলদাররা। এর ফলে পানি কমে গিয়ে খালটি নাব্যতা হারাচ্ছে এবং বাজারের ময়লা আবর্জনায় বরে যাচ্ছে একসময়ে এসব খাল মরা খালে পরিণত হবে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। পালংখালী বাজার কমিটি সভাপতি কামাল উদ্দিন জানান, ৫০ বছরের আগে জনস্বার্থে ওজু, গোসল, প্রয়োজনীয় পানি ব্যবহার করেছিলেন ব্যক্তিগত উদ্যোগে। বর্তমানে সেই খালে পিলার বসিয়ে পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। স্থানীয় ব্যবসায়ী হাজী মোঃ শফিক জানান, একসময়ে খালটি অনেক বড় ছিল। কিন্তু দখল দূষণের কারণে খালটি ছোট হয়ে গেছে। এ খালের পানির চলাচলের কারণে ফসলি জমিতে যে পলিমাটি পড়ত তাতে জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পেয়ে ফসল অনেক বেশি হতো। কিন্তু বর্তমানে সে রকম পলিমাটি না পড়ায় ফসলও আগের চেয়ে অনেক কম হচ্ছে। পালংখালী বাসিন্দা সফিউল্লাহ তুহিন জানান, খালের পাড়ে দোকান রয়েছে অনেকেরই। তবে অনেকেই সীমাবদ্ধতা না রেখে দোকান তুলেছে। কয়েকজন খালের মধ্যে পিলার দিয়ে দোকান তুলেছে, যা মোটেও ঠিক নয়। শাহাদাৎ হোসেন জুুুয়েল নামে এক প্রবীণ ব্যক্তি বলেন, খালের উপর দোকান নির্মাণ জমিদার পরিচয় দিচ্ছে অনেক এ আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে। বেশ কিছু দখলদার অবৈধভাবে খালের পাড় দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করেছেন। অবৈধ দখলদারদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। জমিসংক্রান্ত আইনি জটিলতা থাকলে তা সমাধান করে উচ্ছেদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে শীগ্রই।

কক্সবাজারে পালংখালী বাজারের খালটি দুইপাশের দোকানে গিলে খাচ্ছে বিলীন হইতে যাচ্ছে খাল

শোক সংবাদ……. শোক সংবাদ!

মাহমুদা আকতার মালাঃ 

নোয়াখালী জেলা মহিলা দলের সহ-সাধারণ সম্পাদক ও চাটখিল উপজেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সহ-সভাপতি চাটখিল উপজেলার ৫নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড (হাওড়া, হরিপুর,বানসা, কামালপুর,শোল্যা,বাবুপুর,যষোড়া) সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বার জনাবা আলেয়া বেগম এর স্বামী মোঃ রহমত উল্লাহ (মেডিকেল এসিস্ট্যান্ট) আজ সকালে ০৮:৩০ মিনিটের সময় ঢাকা পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরন করেন ইন্না-লিল্লাহ ওয়াইন্নাইলাহে রাজিউন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী পরিবারের পক্ষ থেকে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

নোয়াখালী জেলা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সহযোদ্ধা স্বামীর মৃত্যু