ওবাইদুল কাদেরের প্রতি অসন্তুষ্ট শেখ হাসিনা। নতুন কাউকে দেখতে চান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।

রিপোটার পরিচিতি :
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০১৯

সময় বাংলা ডেস্ক;

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয়বার সরকার গঠন করেছে। ৪৭ সদস্যের মন্ত্রিসভাও গঠন করা হয়ে গেছে। মন্ত্রিসভা গঠনে চমক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবার সরকার পরিচালনার পাশাপাশি দল নিয়েও নতুন করে ভাবতে শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। সেক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়ের আগেই ২১তম সম্মেলন করার কথা ভাবছেন তিনি।
শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ আওয়ামী লীগের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নতুন সম্মেলন নিয়ে ভাবনার শুরুতেই আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কপাল পুড়তে যাচ্ছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। সাধারণ সম্পাদক পদে নতুন কাউকে দেখতে চান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।
সূত্র জানিয়েছে, মন্ত্রী হিসেবে সফল হলেও দল পরিচালয় দক্ষতা দেখাতে পারেননি ওবায়দুল কাদের। দলে জামায়াত-বিএনপির অনুপ্রবেশ, শৃঙ্খলা ফিরাতে না পারার ব্যর্থতাসহ নানা কারণে বর্তমান সাধারণ সম্পাদকের ওপর যথেষ্টই অসন্তুষ্ট শেখ হাসিনা।
গণভবনের একটি সূত্র জানিয়েছে, গত ৪ জানুয়ারি সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ পাঁচ নেতা সাক্ষাৎ করতে গেলে জাতীয় সম্মেলনের বিষয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তাদের সঙ্গে আলোচনায় আগামী অক্টোবর মাসের আগেই সম্মেলন করে ফেলার আগ্রহ প্রকাশ করেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা।
সেখানে উপস্থিত দুই নেতা বলেন, শেখ হাসিনা আগামী মার্চে সম্মেলনের প্রস্তুতি নিতে বলেন। কেন্দ্রীয় নেতারা মার্চে উপজেলা নির্বাচন হবে মনে করিয়ে দিলে তিনি বলেন, ঠিক আছে; এর দুয়েক মাসের মধ্যে সম্মেলনের প্রস্তুতি নিয়ে এগুতে থাকেন। আমি গতিশীল ও শক্তিশালী আওয়ামী লীগ দেখতে চাই। সেখানে উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতারা জানান, আগাম সম্মেলনের সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থাৎ মার্চের পর যেকোনো সময় সম্মেলন হয়ে যাবে।

এই সংবাদটি শেয়ার করার দায়িত্ব আপনার

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ সমূহ

ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে সহকারী কাম-কম্পিউটারদের ১১৯ পদ সংরক্ষণের নির্দেশ

ডেস্ক নিউজঃ

কক্সবাজারসহ ৪ টি জেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের ১১৯ টি পদ সংরক্ষনের নির্দেশ প্রদান করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরতদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণ না করে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার পদে প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরতদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণের নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা পৃথক দুইটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মুহাম্মদ মাহমুদ হাসান তালুকদার সমন্বয়ের গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মো. মনিরুল ইসলাম ও মো. সোহরাওয়ার্দী সাদ্দাম। অন্য দিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার। আদেশের পর আইনজীবী ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া বলেন, দীর্ঘ ৯ বছর ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারে কর্মরত আছেন রিট আবেদনকারীরা। অথচ তাদের রাজস্ব খাতে আত্তীকরণ না করে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। রিটের শুনানি শেষে আদালত এই ১১৯ টি হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটর পদ ৬ (ছয়) মাসের জন্য সংরক্ষণ করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছেন। ফলে ইউনিয়ন পরিষদে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের এই ১১৯ টি পদের নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে এবং পদ গুলো সংরক্ষিত থাকবে। রিট আবেদনকারিগণ হলেন কক্সবাজার জেলার-আহমেদ আনোয়ার, মুরশেদুল করিম, জিয়াউল হক বাপ্পি, এহসান, গিয়াস উদ্দিন টিটু, আনোয়ারুল কবির, আব্দুল হাকিম, মোঃ মহিউদ্দিন, রুপন নাথ, শাহেদা পারভিন, নারায়নগঞ্জ জেলার-ইউসুফ মিয়া, আল-মাহমুদ, সালমা আক্তার, সাতক্ষিরা জেলার- মগফুর রহমান, মিঠুন কুমার সাহা, দেবদাস সানা, মোঃ শাহিন আলম, আব্দুল রশিদ নান্টু, এস. এম. শহিদুল ইসলাম, সাইফুজ্জামান, ঝিনাইদহ জেলার- মজিবুল হক, মোঃ মাসুদুর রহমান, সঞ্জিত বিশ্বাস, রঞ্জিত কুমার বিশ্বাসসহ ১১৯ জন।তারা বিভিন্ন ইউপির ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা পদে কর্মরত আছেন।

ইউপি ডিজিটাল সেন্টারে সহকারী কাম-কম্পিউটারদের ১১৯ পদ সংরক্ষণের নির্দেশ